facts about amazon in bengali

ভারত তথা পৃথিবীর সবচেয়ে বড় ইকমার্স প্লাটফর্ম অ্যামাজন। কখনো না কখনো আপনি নিশ্চয়ই  অ্যামাজন ব্যবহার করেছেন। তাদের সার্ভিস ও কাস্টমার সাপোর্ট ও মার্কেটিং স্ট্রাটেজি নিশ্চয়ই হয়তো অন্যদের থেকে তুলনামূলক ভালো, নাহলে সবাই কেনই বা অ্যামাজন ব্যবহার করছে ? 

কিন্তু আজ আমরা তাদের পরিষেবা ও ব্যবহার নয় বরং জানাবো  অ্যামাজনের বিষয়ে আটটি আকর্ষণীয় তথ্য। এই ফ্যাক্ট আপনি নিশ্চয়ই আগে কখনো শোনেনি। পৃথিবীর এতো বড়  ব্যাবসা সামলানো অতটা সহজ কিন্তু নয়, আর অ্যামাজন এখন শুধুমাত্র ইকমার্স প্ল্যাটফর্ম নেই এটি একটি সাম্রাজ্য তৈরি হয়েছে আর এই সাম্রাজ্যের সম্রাট জেফ বেজস।

শুরু করছি অ্যামাজনের আজব ফ্যাক্ট  



1. amazon বই বিক্রি দিয়ে তাদের যাত্রা শুরু করে

1995 সালে  জেফ বেজোস প্রথম যখন amazon শুরু করেছিলেন, তখন amazon তার বাড়ির গ্যারেজ থেকে শুরু করেছিলেন। আর এটি একটি বইয়ের দোকান ছিল। 

কিন্তু আপনি কি জানেন, শুধুমাত্র অনলাইনে নয়, 2015 সালে অ্যামাজন তাদের প্রথম ফিজিক্যাল বইয়ের দোকান খুলেছিল, যা প্রমান করে যে সংস্থা তাদের অতীত ভোলেনি ও তারা কী ছিল তারা ভালোই জানে।

আপনি আরও পড়তে পারেন ঃ 10 টি কম্পিউটার স্কিল যা আপনার অবশ্যই জানা উচিত

2. প্রথমে পুরোপুরি আলাদা একটা নাম দেওয়া হয়েছিল Amazon কে


জেফ বেজস  নিজের সংস্থার নাম প্রথমে ভেবেছিলেন যে Cadabra রাখবেন। cadabra মানে কি ? ভাবছেন নিশ্চয়ই। ম্যাজিক দেখতে গিয়ে কখনো শোনেন নি  "আবরা কা ডাবরা" সেই কাডাবরা। মানে এমন একটি বাক্স যেটা খুলতেই সকলের মুখে হাসি ফুটে উঠবে।

কিন্তু জেফ বেজসের উপদেষ্টা ( আইনজীবী ) তাকে cadabra নামটি রাখতে বারন করেন। তিনি বলেন, ম্যাজিকের রেফারেন্স ই-কমার্সে সঠিক মানানসই নয়, সঙ্গে জোরে cadabra উচ্চারণ করলে অনেক সময়ই Cadaver উচ্চারণ হয়ে যেতে পারে। জানিয়ে রাখি Cadaver মানে  মৃতদেহ।

অবশেষে কম্পানি নাম amazon  স্থির করা হয় । amazon হলো  দক্ষিণ আমেরিকার সবচেয়ে বড় নদী। আর সংস্থার রেফারেন্স বা ভিউ ছিল amazon নদীর মতোই বড় এবং গভীর তাদের সংস্থা। 

তাছাড়া জেফ বেজস আরো অনেক নাম ভেবেছিলেন। 

একটা উদাহরণ দেই, আপনি google এ যদি Relentless.com লেখেন আপনাকে amazon.com এ নিয়ে যাওয়া হবে। 

কেন ?

 কারন amazon এর নাম যদি জনপ্রিয় না হতো তবে হয়তো Relentless.com হতো amazon এর নাম।

3. 2018 সালে  AWS প্রায়  $7.3 billion ডলার আয় করে


আপনি সম্ভবত আগে এই লোগো দেখেছেন.  এটি দেখতে অনেকটা অ্যামাজনের মতো, তবুও কিছুটা আলাদা। নাম AWS পুরো নাম Amazon web service ।

aws  একটি ক্লাউড সার্ভিস যা অ্যামাজন পরিচালনা করে। Aws  আসলে একটি আইটি সার্ভিস ম্যানেজমেন্ট কম্পানি। যারা ডেটা স্টোরেজ, পাওয়ার এবং আইটি সহ বিভিন্ন ব্যবসার জন্য ফুল হোস্টিং সার্ভিস প্রদান করে।

 Aws অনেক স্টার্টআপকে কম খরচে তাদের ব্যাবসা বাড়ানোর সুযোগ করে দিয়েছে। কারণ বিভিন্ন সংস্থা aws থেকে শুধুমাত্র যা প্রয়োজন তাই ব্যবহার  করে এবং ও সেটুকুই পেমেন্ট করে। পরে কোম্পানির বৃদ্ধির সাথে সাথে তাদের চাহিদাও বৃদ্ধি করে।

ভাবছেন, এ আর কি ? কিন্তু বলে রাখি aws এর গ্রাহকের নাম শুনলে আপনি বুঝতে পারবেন aws আসলে কতটা শক্তিশালী। নিচে aws এর কিছু গ্রাহকের নাম দিচ্ছি যারা aws এর ফুল সার্ভিস নিচ্ছেন।

  • Cocacola
  • Lyft
  • Airbnb
  • Netflix এবং 
  • Spotify
 সহ আমরা প্রতিদিন ব্যবহার করি এমন অনেক সাইট এবং অ্যাপ AWS-এ চলে।  এমনকি টাইম ইনকর্পোরেটেড এবং কমকাস্টের মতো বড় সংস্থাও তাদের সার্ভারগুলিকে AWS ক্লাউডে স্থানান্তরিত করেছে৷

 আমাজনের মোট আয়ের একটি বড় অংশ আসে aws পরিষেবা থেকে।  2018 সালে, amazon জানিয়েছে যে AWS এর রেভিনিউ  $7.3 বিলিয়ন হয়েছে।যা  2017 সালের থেকে $4.3 বিলিয়ন বেশি।

আপনি দেখে নিতে পারেন ভারতের সেরা দশটি ই-কমার্স ওয়েবসাইটের তালিকা

4. Amazon দুই বছর তাদের ফেডারেল ট্যাক্স পরিশোধ করেনি



2017 থেকে 2018 সালের মধ্যে  Amazon-এর মুনাফা প্রায় দ্বিগুণ হয়ে গিয়েছিল, কিন্তু অ্যামাজন এই দুই বছরের কোনো ফেডারেল ট্যাক্স পরিশোধ করেনি। 

কি এটা কি বেআইনি?

 না, এটা সম্পূর্ণ আইনি।  

মার্কিন সরকার বিভিন্ন কোম্পানিকে নির্দিষ্ট ট্যাক্স বিরতি এবং কখনো কখনো কিছু ট্যাক্স ছাড়ের অনুমতি দেয়।  R&D ট্যাক্স ক্রেডিট নামে একটি নীতি আমেরিকাতে চালু আছে, এতে কোম্পানিগুলিকে R&D (research and development) তে মনোযোগ দিতে উৎসাহিত করতে মাঝে মধ্যেই, R&D tax credit দিয়ে থাকে।

 2005 থেকে 2014 পর্যন্ত, Amazon নির্দিষ্ট কিছু রাজ্যে ওয়ারহাউস তৈরির জন্য $600 মিলিয়নের বেশি ট্যাক্স ডিসকাউন্ট পেয়েছে। এবং  সারা দেশে ডেটা সেন্টার নির্মাণের জন্য ট্যাক্স বিরতিতে আরও $ 147 মিলিয়ন পেয়েছে।

যা তাদের 2017 থেকে 2018 সালের প্রদেয় ট্যাক্সের সমান। 

আপনি আরও পড়তে পারেন ঃ স্টিফেন হকিং এর রোমাঞ্চকর অবিশ্বাস্য কিছু ভবিষ্যদ্বাণী ও থিওরি।

5. আপনি  Amazon থেকে কি কি কিনতে পারবেন না ?

পৃথিবীর সব থেকে বড় দোকান বলে যে সেখানে সবই থাকবে তার কোনো মানে নেই।

এমন কিছু জিনিসও আছে যা আপনি amazon থেকে কিনতে পারবেন না।

 উদাহরণ স্বরূপ বলা যায়  সিগারেট বা মদ ও সমস্ত নেশা জাতীয় বস্তু। 

ওষুধ, আপনি amazon থেকে ওষুধ কিনতে পারবেন না। কোনো ওষুধই নয়।

বাড়ি ঘর কিনতে হলেও আপনাকে অন্য কোথাও যেতে হবে।কারন amazon এ কোনো বাড়ি বা প্রপার্টি বিক্রি হয় না।

গাড়ি কিনতে amazon এর ওয়েবসাইটে গেলে আপনার ভুল হবে। কারন amazon এখনো গাড়ি বিক্রি শুরু করেনি।

তবে খেলনা গাড়ি আপনি কিনতেই পারেন, amazon থেকে।

জীবন্ত প্রানী আপনি নিজের বাড়ি থেকে ফোনে বুক করবেন একটা গোটা জীবন্ত মুরগি , আর পেয়ে যাবেন দুই ঘন্টায়। এমন আইডিয়া এখনো হয়তো amazon এর মাথায় আসেনি। কারন amazon এ কোনো জীবিত প্রানী বিক্রি হয় না। 

ভালো লাগলে আমাদের facebook page ফলো করতে ভুলবেন না।

6. Amazon 41 ব্রান্ডের মালিক। 

Aws এর কথা তো আগেই বলেছি।

তাছাড়া আরো 40 টি ব্রান্ডের মালিকানা অ্যামাজন এর অধীন। যেমন ধরুন

  •  Audible এখানে আপনি বিভিন্ন অডিওবুক  ও প্রডকাস্ট শুনতে পারবেন।
  • Kindle এখানে আপনি বই পড়তে পারবেন
  • IMDb এখানে বিভিন্ন সিনেমার রিভিউ ও সেলিব্রিটিদের বিষয়ে পড়তে পারবেন।
  • Goodreads এখানে থেকেও বই পড়তে পারবেন 
ইত্যাদি, ইত্যাদি। 
আপনি আরও পড়তে পারেন ঃ প্যারিসের দশটি মজাদার, আকর্ষণীয়, এবং অজানা দুর্দান্ত ফ্যাক্ট।

7. Amazon এর অফিস ক্যাম্পাসে আছে 6000 এর বেশি কুকুর

আপনি কি অ্যামাজনে কাজ করছেন ?

আপনার পোষা পেট (পোষ্য) নিয়ে চিন্তা করার দিন শেষ। কারন, আমেরিকার সিয়াটলে অ্যামাজনের প্রধান কার্যালয়ে অ্যামাজন আপনার থেকেও বেশি খেয়াল রাখবে আপনার পোষা কুকুর বা বিড়ালের । 

অ্যামাজনের প্রায় ছয় হাজারেরও বেশি কুকুর আছে। যারা তাদের মালিকের সঙ্গে অ্যামাজনের ক্যাম্পাসে আসে ও মালিকের কাজ শেষ হলে আবার তাদের সঙ্গে চলে যায়। 

আপনি হয়তো বিশ্বাস করবেন না, অ্যামাজনের ক্যাম্পাসের বিভিন্ন জায়গায় কুকুরের stand house বা খাঁচা তৈরি করা আছে।

8. প্রাকৃতিক সৌন্দর্য অ্যামাজন ভালোবাসে

শুধু কুকুর বা পশু পাখি নয়, অ্যামাজন প্রাকৃতিক সৌন্দর্য খুব ভালোবাসে।

অ্যামাজন তার কর্মচারীদের জন্য একটু অন্য কিছু করতে চাইছিল। তাই তার কর্মীদের জন্য অ্যামাজন তৈরি করে একটি এমন জায়গা যেখানে তারা শুধুমাত্র তাদের ডেক্স দিয়ে নয়, কাজ করতে পারবে মন দিয়ে। 2018 সালে কম্পানি তাদের সিয়াটলের ক্যাম্পাসে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের থেকে 400টিরও বেশি গাছ দিয়ে চারিদিকে একটি প্রাকৃতিক সৌন্দর্য তৈরি করে। এবং এই গাছ গুলিকে ঠিকঠাক রাখতে একটি গ্রিনহাউস ও তৈরি করা হয়। 

সময়ে সময়ে এই গাছগুলির স্থান পরিবর্তন করে আরো আকর্ষণীয় করার চেষ্টা নিরন্তর চলতেই থাকে এই ক্যাম্পাসে। 



কেমন লাগলো আপনার আমাদের প্রতিবেদন ? কমেন্ট করে অবশ্যই জানাবেন। আমাদের facebook page ফলো করতে ভুলবেন না। বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করুন, যদি আপনার ভালো লেগে থাকে। আর যেকোনো নতুন পোস্ট বা আর্টিকেল এর ইমেইল নোটিফিকেশন পাওয়ার জন্য আপনি এখানে ক্লিক করতে পারেন। ক্লিক করার পর আপনার নাম ও ইমেইল দিয়ে সাবমিট করে দেবেন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ