ঘূর্ণিঝড় ফ্যাক্ট | ঘূর্ণিঝড় কি? কিভাবে ঘূর্ণিঝড় তৈরি হয় ? | cyclone facts in bangla

 

ঘূর্ণিঝড় যখনই আসে, আমাদের বাংলা জলে ভাসে।

 জলোচ্ছ্বাসে আমরা করি চিন্তা, কাটাই তাকিয়ে আকাশের দিকে।

লাগে আমাদের সবকিছুই ফিকে। কি হয় কে জানে!

 আর আজকাল ঘূর্ণিঝড় একটু বেশি হচ্ছে আমাদের দেশে। ঝড়ের নাম শুনলেই আমরা আঁতকে উঠি। প্রতিবছরই দুটি- তিনটি ঘূর্ণিঝড় ল্যান্ড ফল করছে আমাদের দেশে । ক্ষতি হচ্ছে দেশে প্রচুর সম্পদের। সঙ্গে মানব জীবনের অনেক সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে। 

আসলে কি এই ঘূর্ণিঝড় ? কিভাবে তৈরি হয় আম্পান, ফনি বা সাম্প্রতিক অশনির মত ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড়ের ? নামকরণই বা  কিভাবে হয় ?  ভারতের ইতিহাসে সবথেকে ভয়ঙ্কর ঘূর্ণিঝড় কি ছিল ? এছাড়াও আরও নানান বিষয় নিয়ে আজ আমাদের আলোচনা।


 দেখে নিন আজকের প্রতিবেদনে কি কি থাকছে আপনার জন্য 


  1.  ঘূর্ণিঝড় কাকে বলে?
  2. কিভাবে ঘূর্ণিঝড় গঠিত হয়?
  3. ঘূর্ণিঝড়ের প্রকারভেদ?
  4. ঘূর্ণিঝড়ের প্রধান প্রভাব
  5. ভারতের ইতিহাসে কিছু মারাত্মক শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় 
  6. আপনি কি জানেন ? ঘূর্ণিঝড়ের ফ্যাক্ট 
  7. ঘূর্ণিঝড়ের নামকরণ 
  8. ভবিষ্যতে যে নামগুলি ঘূর্ণিঝড়ের  ব্যবহার করা হবে।

চলুন শুরু করি ।

শুরু করার আগে নতুন পোস্ট বা আর্টিকেল এর ইমেইল নোটিফিকেশন পাওয়ার জন্য আপনি এখানে ক্লিক করতে পারেন। ক্লিক করার পর আপনার নাম ও ইমেইল দিয়ে সাবমিট করে দেবেন।

ঘূর্ণিঝড় কাকে বলে?

ঘূর্ণিঝড় খুবই  হিংস্র ঝড়। যখন আমরা কোনো ঝড় বা ঘূর্ণিঝড় সম্পর্কে কথা বলি, তখন আমাদের অবস্থান মানে আমরা কোথায় আছি এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। কারন আমাদের অবস্থান ভেদে  ঘূর্ণিঝড়ের নাম পরিবর্তন হয়ে যাবে। একই ঘূর্ণিঝড়ের নাম আপনি এখন কোথায় আছেন তার উপর নির্ভর করছে। 

যেমন :

  • উত্তর আমেরিকা এবং ক্যারিবীয় অঞ্চলের কাছাকাছি যে ঘূর্ণিঝড় তৈরি হয় তাকে হারিকেন বলা হয়।
  • ফিলিপাইন, জাপান ও চীনের কাছাকাছি তৈরি হওয়া ঘূর্ণিঝড়গুলোকে টাইফুন বলা হয়।
  •  এবং অস্ট্রেলিয়া ও ভারতের কাছে  তৈরি হওয়া  ঘূর্ণিঝড়কে  সাইক্লোন বলা হয়।

কিভাবে ঘূর্ণিঝড় গঠিত হয়?

ব্যাপারটা একটু জটিল, সহজে বলতে গেলে ঘূর্ণিঝড়গুলি সাধারণত একটি ঘূর্ণায়মান ঝড়। যা একটি নিম্নচাপ কেন্দ্রের চারপাশে ঘোরে। 

ঘূর্ণিঝড়ের ঠিক কেন্দ্রে  থাকে ঘূর্ণিঝড়ের চোখ বা (cyclones eye) যা কিছু নিচে যাচ্ছে তাই পর্যবেক্ষণ করা তার কাজ।  উদাহরণ স্বরূপ বলা যায় এটি একটি সিলিং ফ্যানের  ঘূর্ণায়মান মটরের মতো, যার চারিদিকে ঘূর্ণায়মান প্লেটগুলি প্রচন্ড গতিতে এগিয়ে চলতে চলতে ঘুরতে থাকে ও যে অঞ্চলদিয়ে  যায় সেখানে প্রবল বৃষ্টি  ও অনেক ক্ষতি হয়ে যায়।

ঘূর্ণিঝড়ের প্রকারভেদ?


ক্রান্তীয় ঘূর্ণিঝড় (Tropical Cyclones)

গ্রীষ্মমন্ডলীয় ঘূর্ণিঝড়গুলি আটলান্টিক, প্রশান্ত মহাসাগর এবং ভারত মহাসাগরের উপর তৈরি হয়। এবং বেশিরভাগ গ্রীষ্মকালে তৈরি হয়। 

হারিকেন এবং টাইফুন সাধারণত  ক্রান্তীয় ঘূর্ণিঝড়কে বলা হয় । গ্রীষ্মমন্ডলীয় ঘূর্ণিঝড়কে 1 থেকে 5 ক্যাটাগরি ভাগ করা  হয়েছে। যা ঘূর্ণিঝড়ের  তীব্রতা এবং বাতাসের গতি বৃদ্ধির সাথে সাথে সংখ্যা বৃদ্ধি পায়।

যেমন একটি 74-95 মাইল প্রতি ঘণ্টার ঘূর্ণিঝড়কে দুর্বল বলা হবে ও ক্যাটাগরির 1 এ রাখা হবে। এবং একটি 155 মাইল প্রতি ঘণ্টা বা তারও উপরের কোনো ঘূর্ণিঝড়কে ক্যাটাগরি 5  এ রাখা হবে। এবং এটি অত্যন্ত বিপর্যয়কর এবং বিপজ্জনক তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। 

আপনি আরও পড়তে পারেন ঃ 10 টি কম্পিউটার স্কিল যা আপনার অবশ্যই জানা উচিত

মেরু ও মেসো সাইক্লোন (Polar Cyclones and Mesocyclones)

অন্য আর এক ধরনের ঘূর্ণিঝড় হল পোলার সাইক্লোন এবং মেসোসাইক্লোন। 

গ্রীনল্যান্ড, সাইবেরিয়া বা অ্যান্টার্কটিকায় শীতের মাসগুলিতে মেরু অঞ্চলে মেরু ঘূর্ণিঝড় দেখা দেয়।  যখন কোনো বজ্রঝড় মেঘের একটি অংশ ঘুরতে শুরু করে এবং একটি টর্নেডো গঠন করে তখন তাকে মেসোসাইক্লোন বলে।

গ্রীষ্মমন্ডলীয় ঘূর্ণিঝড় গ্রীষ্মমন্ডলীয় উষ্ণতার উপর তৈরি হয়।  যখন সমুদ্রের জলের উপরে উষ্ণ, আর্দ্র বাতাস উঠে যায়, তখন এটি ঠান্ডা বাতাস দ্বারা প্রতিস্থাপিত (replacement) হয়। এবং ক্রমাগত  শীতল বায়ু উষ্ণ হয় এবং বাড়তে থাকে।  

এই চক্রের ফলে বিশাল মেঘ তৈরি হয়। তারপর এই উষ্ণ মেঘগুলি পৃথিবীর ঘূর্ণন গতির ফলে  ঘুরতে শুরু করে।

পর্যাপ্ত উষ্ণ জল থাকলে, চক্রটি (cycle)  চলতে থাকে এবং ঝড়ের মেঘ এবং বাতাসের গতির ফলে একটি ঘূর্ণিঝড় তৈরি করতে থাকে। যখন এটি গ্রীষ্মমন্ডলীয় মহাসাগরে ঘটে তখন একে Tropical depression বলা হয়। এবং যখন মেঘ দ্রুত ঘুরতে শুরু করে, তখন আমরা একটি ঘূর্ণিঝড়ের ধংস লীলার সাক্ষী হয়ে থাকি।

ভালো লাগলে আমাদের facebook page ফলো করতে ভুলবেন না।

ঘূর্ণিঝড়ের প্রধান প্রভাবগুলি হল 

  • ভারী বৃষ্টিপাত
  •  প্রবল বাতাস
  • ভূমি পতন এবং
  •  টর্নেডো।  
ঘূর্ণিঝড়ের ধ্বংস বাতাসের তীব্রতার উপর নির্ভর করে। 

ভারতের ইতিহাসে কিছু মারাত্মক শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড়


 1. 1970 সালের Bhola ঘূর্ণিঝড়

ঘূর্ণিঝড় ভোলাকে ভারতের ইতিহাসে দেশে আঘাত হানা সবচেয়ে মারাত্মক ঘূর্ণিঝড় বলে মনে করা হয়। ঘূর্ণিঝড়টি বাংলাদেশ, পাকিস্তান এবং ভারতের পশ্চিমবঙ্গের একটি বিরাট অংশে বড় প্রভাব ফেলেছিল। এবং প্রায় 3 থেকে 5 লাখের মতো মানুষের মৃত্যুর কারণ হয়েছিল।

2. 1864 সালের Calcutta সাইক্লোন 

1864 সালের 5 অক্টোবর,  বর্তমান কলকাতা এর বেশিরভাগ এলাকা একটি গ্রীষ্মমন্ডলীয় ঘূর্ণিঝড় দ্বারা প্লাবিত এবং ধ্বংস হয়ে যায়।

1864 সালের Calcutta সাইক্লোন নামে পরিচিত, ঝড়টি 60,000 এরও বেশি মানুষের প্রাণহানি ঘটায়। ঘূর্ণিঝড়টি হুগলি নদীর দক্ষিণে পশ্চিমবঙ্গের উপকূল অতিক্রম করে, যা গঙ্গা নদীর ব-দ্বীপের অন্তর্ভুক্ত একটি প্রবাহ। 

বেশির ভাগ মৃত্যু হয়েছে জলে ডুবে।  উল্লিখিত গঙ্গা নদী এই ঝড়ের কারণে উপচে পড়ে এবং জল অভ্যন্তরীণ এলাকায়  প্রবাহিত হওয়ার সাথে সাথে এর গতিপথের সমস্ত কিছুই ধুয়ে মুছে সাফ হয়ে যায়। ঝড়ে মোট ক্ষয়ক্ষতি হয়েছিল আনুমানিক  99,200 টাকা।  যার বর্তমান মূল্য প্রায় 2308260389 টাকার সমান।

আনুমানিক প্রায় 60,000 জন মানুষ মারা যান Calcutta সাইক্লোনের কারনে।

আপনি আরও পড়তে পারেন  ঃ  অ্যামাজনের আঁটটি মজাদার ফ্যাক্ট।

3. 2005 সালের সাইক্লোন Pyaar

ঘূর্ণিঝড় পেয়ার ছিল 2005 সালের উত্তর ভারত মহাসাগরের ঘূর্ণিঝড় মৌসুমের একটি অংশ, যা দক্ষিণ ভারতে ধ্বংসযজ্ঞ চালিয়েছিল।  ঘূর্ণিঝড়ের কারণে অন্ধ্রপ্রদেশ এবং ওড়িশায় প্রচুর ধ্বংসযজ্ঞ হয়েছে, যার ফলে 270 জনেরও বেশি মৃত্যু হয়েছে।

4. 2008 সালের ঘূর্ণিঝড় Nisha

নিশা ঘূর্ণিঝড় শ্রীলঙ্কা থেকে উদ্ভূত হয়েছিল এবং তামিলনাড়ুতে উল্লেখযোগ্য পরিমাণ ক্ষতি করেছে।  ঘূর্ণিঝড়টি মোট পাঁচ দিন স্থায়ী ছিল এবং মোট 200 জনেরও বেশি মানুষের মৃত্যুর কারণ হয়েছিল।

5. 2021 সালের ঘূর্ণিঝড় Tauktea

অত্যন্ত মারাত্মক ঘূর্ণিঝড় টাকতাই সাম্প্রতিক বছরগুলিতে ভারতে আঘাত হানা সবচেয়ে শক্তিশালী এবং মারাত্মক ঝড়গুলির মধ্যে একটি ছিল, যা গুজরাটে ধ্বংসযজ্ঞ চালিয়েছিল।  এতে মোট 174 জন নিহত হয়েছে এবং ঝড়ের পর 81 জন নিখোঁজ হয়েছে বলে জানা গেছে।

আপনি আরও পড়তে পারেন  ঃ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের গোপন কিছু ফ্যাক্ট যা আপনাকে অবাক করবে

আপনি কি জানেন 


  • পৃথিবীর ঘূর্ণনের কারণে ঘূর্ণিঝড় উত্তর গোলার্ধে ঘড়ির কাঁটার বিপরীতে এবং দক্ষিণ গোলার্ধে ঘড়ির কাঁটার দিকে ঘোরে
  • বঙ্গোপসাগর ও আরব সাগরে ঘূর্ণিঝড়ের নামকরণ শুরু হয় ২০০৪ সালের সেপ্টেম্বরে।
  • ঘূর্ণিঝড়ের নামকরণের সময় Q,U,X,Y,Z অক্ষরগুলি ব্যবহার করা হয় না । এবং নামগুলি পুরুষ এবং মহিলা নামের মধ্যবর্তী মানে উভলিঙ্গ হয়।

ভবিষ্যতে যে নামগুলি ব্যবহার করা হবে তার মধ্যে রয়েছে 


1. ভারতের Ghurni, Probaho, Jhar and Murasu 
2. বাংলাদেশ Biparjoy 

3.সৌদি আরব Asif
4. ইয়েমেন Diksam
5.ইরান Toofan
6.শ্রীলঙ্কা Shakhti

ইত্যাদি ইত্যাদি।


কেমন লাগলো আপনার আমাদের প্রতিবেদন ? কমেন্ট করে অবশ্যই জানাবেন। আমাদের facebook page ফলো করতে ভুলবেন না। বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করুন, যদি আপনার ভালো লেগে থাকে। 
আর যেকোনো নতুন পোস্ট বা আর্টিকেল এর ইমেইল নোটিফিকেশন পাওয়ার জন্য আপনি এখানে ক্লিক করতে পারেন। ক্লিক করার পর আপনার নাম ও ইমেইল দিয়ে সাবমিট করে দেবেন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ