ফ্রীল্যান্সিং কি ? ফ্রীল্যান্সিং এ কিভাবে কাজ করতে হয় ?

  ফ্রিল্যান্সিং এর ধারণা  

প্রতিদিন কিভাবে অন্তত 500 টাকা অনলাইনে কাজ করে ইনকাম করা যায় তা জানতে অনেকেই গুগল, ইউটিউব এবং সঙ্গে আমাদের পেজে কমেন্টস করছেন।

ঘরে বসে অনলাইনে অর্থ উপার্জন করার অনেক উপায় রয়েছে, কিন্তু ভালো প্যাসিফ ইনকামের জন্য আপনাকে অনেক ধৈর্যশীল হতে হবে। 

পাশাপাশি যদি আপনি ফ্রীল্যান্সিং করতে পারেন, আপনি আপনার রোজগার সাথে সাথে (প্রজেক্ট জমা দিলেই) পেতে পারেন। 

অনেকের মনে প্রশ্ন জাগতে পারে, ঘরে বসেই যদি টাকা রোজগার করা যেত, তাহলে সবাই চাকরি বা ব্যবসা করছে কেন?

কেনই বা দেশে এত বেকারত্ব ?

কারন হ্যাঁ, আপনার মতামত একদম ঠিক।সবাই চাইলেই সাথে সাথে ফ্রীল্যান্সিং করতে পারবেন না, আগে তাকে ফ্রীল্যান্সিং করতে শিখতে হবে।

আপনি যদি ঘরে বসে অর্থ উপার্জন করতে চান, তবে আপনার কিছু বিশেষ বিষয়ে অভিজ্ঞতা ও দক্ষতার প্রয়োজন হবে।

আপনার যদি কোন দক্ষতা না থাকে, তবে তা আপনাকে  শিখতে হবে। এবং এই শেখা ও  এক্সিকিউট করতে আপনার বেশ সময় লাগবে। সঙ্গে আপনার কাজের বা বলা ভালো আপনার প্রতিভার ফল আপনি রাতারাতি ও পাবেন না। তাই আপনার অনলাইনে কাজের ক্ষেত্রে ধৈর্য একটি বড় অস্ত্র হতে চলেছে।   

 ফ্রীল্যান্সিং এ উন্নতির কতটা সুযোগ? 

আপনি যদি একটু  খেয়াল করেন, দেখতে পাবেন বর্তমান ভারতে প্রায় 1.5 কোটি ফ্রিল্যান্সার রয়েছেন।

তারা তাদের দক্ষতা ব্যবহার করে এবং ইন্টারনেটের মাধ্যমে বেশিরভাগ সময়ই বিদেশে ক্লায়েন্টদের সাথে কাজ করছে। এবং একটি দুর্দান্ত জীবন-যাপন করছে।

আপনার জন্য ফ্রিল্যান্সিং হতে পারে নতুন করে জীবন  শুরু করার একটি দুর্দান্ত উপায়। 

ফ্রীল্যান্সিং আপনাকে বিভিন্ন বড় বড় ক্লায়েন্ট এবং বিগ প্রজেক্টের অংশ হয়ে  কাজ করার সুযোগ করে দেয়। 

ফ্রীল্যান্সিং  নতুন দক্ষতা শেখার এবং নিজের প্রাইভেট ফার্ম খুলতে আপনাকে নতুন করে উদ্যমী করতে পারে। 

ফ্রীল্যান্সিং এ আপনাকে কম্পিউটারের উপর একে একে দক্ষতা অর্জন করে বিভিন্ন দেশের বিভিন্ন ক্লায়েন্টের সাথে কাজ করতে হবে ।

 ফ্রীল্যান্সিং এ কি কাজ করতে হবে ?

অনেকে বলবে ফ্রীল্যান্সিং মানে যারা গ্রাফিক ডিজাইন এবং ওয়েব ডেভেলপমেন্ট ফিল্ডে কাজ করে তারা এই কাজ করতে পারবে। আদতে এটা ঠিক তথ্য নয়।

আপনি যদি লেখালেখিতে দক্ষ হন আপনি কনটেন্ট রাইটিং বা কনটেন্ট ডিজাইনিং করতে পারেন।

ফ্রীল্যান্সিং এ কম্পিউটারের যেকোনো ছোটো বড় কাজের চাহিদা আছে। আপনি খুব সাধারণ মাইক্রোসফট ওয়ার্ড বা এক্সেল এ দক্ষ হন, তাহলেও আপনি চাইলে ফ্রীল্যান্সিং করতে পারবেন। তবে সেক্ষেত্রে আপনাকে বেশি কাজে কম টাকা নিতে হবে।

মনে রাখবেন :   আপনি ফ্রীল্যান্সিং এ যে কাজই করুন না কেন, আপনাকে ওই নির্দিষ্ট ফিল্ডে হতে হবে পুরোপুরি এক্সপার্ট।

 কিছু ফ্রীল্যান্সিং প্লাটফর্মের উদাহরণ দেওয়া হলো 

এই নিবন্ধটি সম্পর্কে আপনার যদি কোনও প্রশ্ন বা পরামর্শ থাকে তবে নীচের মন্তব্য বক্সে লিখতে ভুলবেন না এবং ভালো লাগলে  বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ