আফগানিস্তান : ইতিহাস, ভূগোল, অর্থনীতি, নামকরণ, সামাজিক অবস্থা, রাজনৈতিক অবস্থা ও প্রশ্ন উত্তর | Afghanistan in bengali

আফগানিস্তানের সরকারি ভাষা পশতু এবং দারি (ফার্সি)। অন্যান্য কথ্য ভাষাগুলির মধ্যে রয়েছে উজবেক, তুর্কমেন, বেলুচি এবং ইংরেজি। read more.....

আফগানিস্তানের পতাকা

Country Afghanistan
  • Capital: Kabul
  • Population: 39.2 million
  • Area: 652,230 square kilometers
  • Currency: Afghan afghani
  • Current Administration: Taliban Emirate
  • HDI: 0.434 (Low)
  • Literacy Rate: 37.27% (2021)
  • GDP (current US$): 14.58 billion (2021)
  • GDP per capita (current US$): 364 (2021)


ভূমিকা 

দক্ষিণ এশিয়ার একটি স্থলবেষ্টিত দেশ আফগানিস্তান। সভ্যতার সন্ধিক্ষণ হিসেবে এই দেশটির রয়েছে এক সমৃদ্ধ ইতিহাস। এর বিচিত্র ভূগোল, রুক্ষ পাহাড় থেকে উর্বর উপত্যকা পর্যন্ত, এর সংস্কৃতি ও সমাজকে গঠন করেছে। পশতু এবং দারি সহ বিভিন্ন জাতিগত গোষ্ঠী এবং ভাষার আবাসস্থল, আফগানিস্তানে সংঘাতের সময়কাল, বিদেশী হস্তক্ষেপ এবং স্থিতিশীলতার দিকে প্রচেষ্টা দেখা গেছে। দেশের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য, রন্ধনশৈলী এবং ঐতিহাসিক গুরুত্ব বিশ্বের দৃষ্টি আকর্ষণ করে চলেছে। বিভিন্ন চ্যালেঞ্জের মধ্যেও আফগানিস্তান অগ্রগতির জন্য সচেষ্ট, বাধা অতিক্রম করে উজ্জ্বল ভবিষ্যত্ গড়ে তোলার লক্ষ্য নিয়ে অসন্তুষ্ট এবং অন্যান্য। 

আসুন আফগানিস্তান সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জেনে নিন

আফগানিস্তান এর নামকরণ 

"আফগানিস্তান" নামটি ফার্সি শব্দ "আফগান" এবং "স্তান" থেকে উদ্ভূত হয়েছে, যেখানে "আফগান" পশতুন জাতিগোষ্ঠীকে বোঝায় এবং "স্তান" অর্থ "ভূমি" বা "স্থান" অতএব, "আফগানিস্তান" এর অর্থ হল "আফগানদের ভূমি" শত শত বছর ধরে এই নামটি পশতুন, তাজিক, হাজারা এবং অন্যান্য বিভিন্ন জাতিগোষ্ঠীর দ্বারা অধ্যুষিত অঞ্চলকে বর্ণনা করার জন্য ব্যবহৃত হয়ে আসছে, যা দেশের জনসংখ্যা গঠন করে।

আফগানিস্তান এর ইতিহাস 

আফগানিস্তানের ইতিহাস সমৃদ্ধ ও জটিল, হাজার বছরের। এটি সভ্যতার একটি সন্ধিক্ষণ এবং বিভিন্ন সাম্রাজ্য, বিজয় এবং সাংস্কৃতিক প্রভাবের অভিজ্ঞতা লাভ করেছে।

প্রাচীন আফগানিস্তান পারস্যের আচেমেনিড সাম্রাজ্যের অংশ ছিল এবং পরে মৌর্য ও গ্রিক-ব্যাক্ট্রিয় রাজ্যের অংশ ছিল। সপ্তম শতাব্দীতে ইসলামের প্রবর্তন হয় এবং আফগানিস্তান বিভিন্ন ইসলামী খিলাফতের অংশ হয়ে ওঠে।

মধ্যযুগে, আফগানিস্তান সিল্ক রোড বরাবর বাণিজ্য ও সংস্কৃতির একটি গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্র ছিল। আফগানিস্তান মঙ্গোল, তৈমুর এবং অন্যান্য মধ্য এশিয়ার শক্তিগুলির আক্রমণের মুখোমুখিও হয়েছিল।

অষ্টাদশ ও ঊনবিংশ শতাব্দীতে আফগানিস্তান ব্রিটিশ ও রুশ সাম্রাজ্য বিস্তারের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলে। 19 শতকে আফগান আমিরাত প্রতিষ্ঠিত হয় এবং পরবর্তীতে আমির আবদুর রহমান আফগানিস্তানকে আধুনিকায়ন করেন।

বিংশ শতাব্দীতে আধুনিকায়নের প্রচেষ্টা, একটি রাজতন্ত্র এবং একটি স্বল্পস্থায়ী প্রজাতন্ত্র সহ রাজনৈতিক উত্থান দেখা যায়। 1979 সালে আফগানিস্তানকে সোভিয়েত ইউনিয়ন আক্রমণ করে, যার ফলে এক দশকব্যাপী সংঘাত শুরু হয়, যাতে আফগান প্রতিরোধ যোদ্ধা (মুজাহিদীন) এবং বিদেশী শক্তি (আমেরিকার সৈন্য) জড়িত ছিল।

1990s সালে গৃহযুদ্ধ শুরু হয় এবং তালেবানের উত্থান ঘটে, যা একটি রক্ষণশীল ইসলামী আন্দোলন এর দাবির আবদার যা আফগানিস্তানের বেশিরভাগের উপর নিয়ন্ত্রণ অর্জন করে। এদের শাসনে ছিল নিপীড়ন ও বিচ্ছিন্নতাবাদিদের শাসন।

2001 সালের 11 সেপ্টেম্বরের হামলার পর মার্কিন নেতৃত্বাধীন জোট তালেবান সরকারকে ক্ষমতাচ্যুত করে। নতুন সরকার প্রতিষ্ঠিত হয় এবং দেশকে পুনরায় গড়ে তোলার চেষ্টা করা হয়। তবে, বিদ্রোহ, দুর্নীতি এবং জাতিগত উত্তেজনার মতো চ্যালেঞ্জগুলি তখনও অব্যাহত ছিল।

এটি আফগানিস্তানের ইতিহাসের একটি সংক্ষিপ্ত বিবরণ মাত্র। রাজনৈতিক, সাংস্কৃতিক এবং সামাজিক বিকাশের ক্ষেত্রে আরও অনেক কিছু আছে যা সময়ের সাথে সাথে আফগানিস্তান জাতি ও দেশকে এই ভাবে গঠন করেছে।

আফগানিস্তান এর ভৌগোলিক অবস্থান 

আফগানিস্তান দক্ষিণ এশিয়ায় অবস্থিত একটি স্থলবেষ্টিত দেশ, যার পূর্ব ও দক্ষিণে পাকিস্তান, পশ্চিমে ইরান, উত্তরে তুর্কমেনিস্তান, উজবেকিস্তান এবং তাজিকিস্তান এবং উত্তর-পূর্বে চীন অবস্থিত। আফগানিস্তান প্রায় 652,230 বর্গ কিলোমিটার (251,830 বর্গমাইল) এলাকা জুড়ে বিস্তৃত, এটি বিশ্বের 40 তম বৃহত্তম দেশ।

দেশের ভূগোল বৈচিত্র্যময় এবং রুক্ষ পর্বতশ্রেণী, বিস্তীর্ণ মরুভূমি এবং উর্বর উপত্যকা দ্বারা বৈশিষ্ট্যমন্ডিত। হিন্দুকুশ পর্বতশ্রেণী আফগানিস্তানের মধ্য ও উত্তরাঞ্চলের মধ্য দিয়ে চলে গিয়েছে যার কিছু শিখর উচ্চতায় 7,000 মিটার (23,000 ফুট) এরও বেশি সুউচ্চ।

আমু দরিয়া এবং হরি নদী আফগানিস্তানের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত গুরুত্বপূর্ণ নদী, যা সেচ এবং কৃষির জন্য জল সরবরাহ করে। দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমের শুষ্ক অঞ্চল থেকে মধ্য ও উত্তরাঞ্চলের অধিক নাতিশীতোষ্ণ অঞ্চল পর্যন্ত ভূদৃশ্যের প্রচুর পার্থক্য রয়েছে।

রাজধানী শহর কাবুল দেশের পূর্ব অংশে অবস্থিত। অন্যান্য প্রধান শহরগুলির মধ্যে রয়েছে কান্দাহার, হেরাত এবং মাজার-ই-শরিফ। আফগানিস্তানের ভূগোল তার ইতিহাস, সংস্কৃতি এবং চ্যালেঞ্জগুলিতে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করেছে, যার মধ্যে সামুদ্রিক বাণিজ্য পথ থেকে বিচ্ছিন্নতা এবং পার্বত্য ভূখণ্ড দ্বারা সৃষ্ট অসুবিধা অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

আফগানিস্তানের রাজনৈতিক ল্যান্ডস্কেপ 

আফগানিস্তানে কয়েক বছর ধরে বিভিন্ন পরিবর্তন ও পরিবর্তনের সাথে সাথে একটি জটিল রাজনৈতিক ল্যান্ডস্কেপ তৈরি হয়েছে।

2001 সালে তালেবান শাসনের পতনের পর নতুন রাজনৈতিক শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠিত হয়। 2001 সালের বন চুক্তি একটি অন্তর্বর্তীকালীন সরকার গঠনের দিকে পরিচালিত করে, যা আফগান ট্রানজিশনাল অথরিটি প্রতিষ্ঠা এবং 2004 সালে একটি নতুন সংবিধান গঠন ও গ্রহণ করে।

হামিদ কারজাই হলেন আফগানিস্তানের প্রথম রাষ্ট্রপতি।

পরবর্তী বছরগুলোতে রাষ্ট্রপতি ও সংসদ নির্বাচনসহ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। তবে, আফগানিস্তান বিদ্রোহ, দুর্নীতি এবং প্রশাসনিক সমস্যার মতো উল্লেখযোগ্য চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি সবসময়। কেন্দ্রীয় সরকার রাজধানী ও প্রধান শহরগুলির বাইরে বিশেষ করে প্রত্যন্ত ও গ্রামাঞ্চলে তার কর্তৃত্ব সম্প্রসারণের জন্য রীতিমত সংগ্রাম করেছিল।

আফগানিস্তানের স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে এবং বিদ্রোহী গোষ্ঠীগুলোর বিরুদ্ধে লড়াইয়ে যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বাধীন আন্তর্জাতিক সামরিক বাহিনী ভূমিকা পালন করে। পরিস্থিতি নাজুক ছিল, চলমান দ্বন্দ্ব এবং বিভিন্ন অংশের সাথে আলোচনার চেষ্টাও করা হয়েছিল। কিন্ত, 

2021 সালে আফগান সরকার ও তালেবানের মধ্যে শান্তি আলোচনা শুরু হয়, যার চূড়ান্ত পরিণতি হয় মার্কিন-তালিবান দোহা চুক্তিতে। এই চুক্তির ফলে আফগানিস্তান থেকে বিদেশি বাহিনী প্রত্যাহারের পথ সুগম হয়। পরবর্তী আলোচনার লক্ষ্য ছিল সংঘাতের একটি রাজনৈতিক সমাধান খুঁজে বের করা।

ও শেষমেষ আবার তালেবান জঙ্গি সংগঠনের অধীনস্থ হয়ে পরে আফগানিস্তান।  এমনকি রাষ্ট্রপতির পলাতক হন ও বিশ্বের অন্যান্য দেশ স্তম্ভিত হয়ে যায়।

আফগানিস্তানের সামাজিক অবস্থান

আফগানিস্তানের সামাজিক অবস্থা ঐতিহাসিক, সাংস্কৃতিক, রাজনৈতিক এবং অর্থনৈতিক কারণগুলির একটি জটিল পারস্পরিক ক্রিয়া দ্বারা প্রভাবিত হয়েছে। এখানে আফগানিস্তানের সামাজিক অবস্থার কিছু প্রধান দিক তুলে ধরা হলো:

1. জাতিগত বৈচিত্র্য

আফগানিস্তান মুসলিম প্রধান দেশ, কিন্ত  জাতিগতভাবে বৈচিত্র্যময়, বিভিন্ন জাতিগোষ্ঠী যেমন পশতুন, তাজিক, হাজারা, উজবেক এবং অন্যান্য জাতির লোক এখানে বসবাস করেন। এবং এই কারনেই মাঝেমধ্যে জাতিগত উত্তেজনা কখনও কখনও দ্বন্দ্ব এবং রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বিতার কারণ হয়ে দাঁড়ায় ।

2. লিঙ্গ বৈষম্য এবং নারীর অধিকার

ঐতিহ্যগত লিঙ্গ ভূমিকা প্রায়ই শিক্ষা, কাজ এবং জনজীবনে মহিলাদের প্রবেশাধিকার অতিসীমিত করেছে। সাম্প্রতিক বছরগুলিতে আফগানিস্তানের উন্নতি সত্ত্বেও, লিঙ্গ বৈষম্য একটি উল্লেখযোগ্য বিষয় রয়ে গেছে।

3. শিক্ষা

আফগানিস্তানের সংঘাত ও সীমিত অবকাঠামোর কারণে শিক্ষাব্যবস্থা চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছে। বিশেষ করে মেয়ে ও নারীদের শিক্ষার সুযোগ বাড়ানোর বিশেষ চেষ্টা করা উচিত।

4. হেলথকেয়ার বা জনস্বাস্থ্য 

বছরের পর বছর ধরে চলা সংঘাতের কারণে স্বাস্থ্য পরিষেবার পরিকাঠামো ভেঙে পড়ার উপক্রম ও বিরাট ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, যার ফলে সমস্ত নাগরিকের কাছে মানসম্পন্ন চিকিত্সা পরিষেবা পৌঁছে দেওয়ার ক্ষেত্রে আফগানিস্তান কে রীতিমত চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে হয়েছে।

5.  শরণার্থী

চলমান সংঘাত ও অস্থিতিশীলতার ফলে অভ্যন্তরীণ বাস্তুচ্যুতি হয়েছে লক্ষ লক্ষ মানুষ এবং অন্যান্য দেশে আশ্রয়প্রার্থী হয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে অসহায় আফগান শরণার্থীরা।

6. সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য

আফগানিস্তানের একটি সমৃদ্ধ সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য রয়েছে, তবে বেশকিছু ঐতিহাসিক স্থান এবং শিল্পকর্মগুলি সংঘাতের সময় ক্ষতিগ্রস্ত বা ধ্বংস হয়ে গেছে।

7. দরিদ্রতা

অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জের কারণে অনেক আফগানের জন্য উচ্চ মাত্রার দারিদ্র্য এবং মৌলিক পরিষেবাগুলিতে অতি সীমিত অংশগ্রহণ রয়েছে।

8. নাগরিক সমাজ

অনেক চ্যালেঞ্জ সত্ত্বেও, বলতেই হবে নাগরিক সমাজ সংগঠন এবং কর্মীরা সামাজিক সমস্যাগুলি সমাধান, মানবাধিকার প্রচার এবং আফগানিস্তানের ইতিবাচক পরিবর্তনের পক্ষে নিষ্ঠাবান হয়ে কাজ করে চলেছে।

9. যুবসমাজ ও প্রযুক্তি

আফগানিস্তানের তরুণ জনসংখ্যা উল্লেখযোগ্য। মোবাইল ফোন ও ইন্টারনেটসহ প্রযুক্তিতে প্রবেশাধিকার যোগাযোগ ও তথ্য আদান-প্রদানের নতুন সুযোগ সৃষ্টি করেছে।

এখানে উল্লেখ্য যে, আফগানিস্তানের সামাজিক অবস্থা জটিল এবং সময়ের সাথে সাথে বিবর্তিত হয়েছে। বিশেষ করে 2001 সালে তালেবান শাসনের পতনের পর দেশটিতে উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন দেখা দিয়েছে। তবে আবার 2021 সালে তালেবানের দখলে যাওয়ার পর কি কি হয় আমাদের দেখা উচিত। তবে, রাজনৈতিক অনিশ্চয়তা সামাজিক ল্যান্ডস্কেপে প্রভাব ফেলবে তা বলাই যায়।

আফগানিস্তানের অর্থনীতি 

কয়েক দশকের সংঘাত, সীমিত অবকাঠামো এবং রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা সহ বিভিন্ন চ্যালেঞ্জ দ্বারা প্রভাবিত আফগানিস্তানের অর্থনীতির কিছু গুরুত্বপূর্ণ দিক তুলে ধরা হলো

1. কৃষি

আফগানিস্তানের অর্থনীতির একটি উল্লেখযোগ্য খাত কৃষিভিত্তিক এবং জনসংখ্যার একটি বড় অংশ এখনও কৃষিকাজের সঙ্গে জড়িত।

গম, বিভিন্ন ফল, বাদাম, আফিম পপি ইত্যাদি ফসল আফগানিস্তানের অর্থনীতিতে বড় অবদান রাখে।

তবে, জনস্বাস্থ্য ও নিরাপত্তায়  কুপ্রভাবের কারণে আফিম উত্পাদন উদ্বেগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

2. প্রাকৃতিক সম্পদ

খনিজ সম্পদ, যেমন লৌহ আকরিক, তামা, এবং বিরল ভূ-উপাত্তের মতো প্রাকৃতিক সম্পদে সমৃদ্ধ আফগানিস্তান। তবে নিরাপত্তাজনিত উদ্বেগ ও সীমিত অবকাঠামোর কারণে এসব সম্পদের ব্যবহার ব্যাহত হচ্ছে।

3. বাণিজ্য

আফগানিস্তানের অবস্থান ঐতিহাসিকভাবে এটি বাণিজ্যের জন্য একটি চৌরাস্তা তৈরি করেছে, বিশেষ করে ঐতিহাসিক সিল্ক রোড বরাবর। প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গে বাণিজ্য, বিশেষ করে পাকিস্তান ও ইরানের সঙ্গে বাণিজ্য অর্থনীতির জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে ।

4. বিদেশী সাহায্য

আফগানিস্তান যথেষ্ট বৈদেশিক সাহায্য পেয়ে থাকে, যা বর্তমানে অবকাঠামো পুনর্নির্মাণ, প্রয়োজনীয় সেবা প্রদান এবং অর্থনৈতিক উন্নয়নে সহায়তা করার জন্য অপরিহার্য হয়ে উঠেছে।

5.  কর্মসংস্থান

 আফগানিস্তানে  যথেষ্ট তরুণ জনসংখ্যা রয়েছে এবং টেকসই উন্নয়ন ও স্থিতিশীলতার জন্য শিক্ষা ও কর্মসংস্থানের সুযোগ প্রদান অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

6. বিদেশি বিনিয়োগ

চ্যালেঞ্জ সত্ত্বেও আফগানিস্তানে অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে আন্তর্জাতিক সংস্থা ও বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ রয়েছে। কিন্ত বর্তমান পরিস্থিতির কারনে সবাই বিনিয়োগের ঝুঁকি নিতে একটু ভয় পাচ্ছেন। 

আফগানিস্তান কিছু ক্ষেত্রে অগ্রগতি অর্জন করেছে, তবে চলমান সংঘাত ও অনিশ্চয়তা তার অর্থনৈতিক সম্ভাবনাকে প্রভাবিত করে চলেছে।

আফগানিস্তান সম্পর্কে  20টি প্রশ্ন ও তার উত্তর এখানে দেওয়া হল

1. আফগানিস্তানের রাজধানীর নাম কি ?

আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুল।

2. আফগানিস্তানে কোন কোন ভাষায় কথা বলা হয়?

 আফগানিস্তানের সরকারি ভাষা পশতু এবং দারি (ফার্সি)। অন্যান্য কথ্য ভাষাগুলির মধ্যে রয়েছে উজবেক, তুর্কমেন, বেলুচি এবং ইংরেজি।

3. আফগানিস্তানের প্রধান জাতিগোষ্ঠীগুলো কী?

আফগানিস্তানের প্রধান জাতিগত গোষ্ঠীগুলির মধ্যে রয়েছে পশতুন, তাজিক, হাজারা এবং উজবেক।

4.  আফগানিস্তানে তালেবান সংঘাতের কী প্রভাব পড়েছে?

তালেবান সংঘাতের ফলে উল্লেখযোগ্য সামাজিক, অর্থনৈতিক এবং রাজনৈতিক ক্ষতি হয়েছে, যার মধ্যে রয়েছে বাস্তুচ্যুতি, অস্থিতিশীলতা এবং অবকাঠামো ধ্বংস।

5. আফগানিস্তানের ইতিহাসে তালেবানের ভূমিকা কী?

তালিবানরা 1990 সালে আবির্ভূত হয় এবং আফগানিস্তানের উপর নিয়ন্ত্রণ অর্জন করে, ইসলামী আইনের কঠোর ব্যাখ্যা বাস্তবায়ন করে। 2001 সালে তাদের ক্ষমতা থেকে সরিয়ে দেওয়া হলেও তারা একটি উল্লেখযোগ্য উপস্থিতি হিসেবে রয়ে গেছে এবং 2021 সালে আবার তালেবান শাসনের শুরু হয়

6. সংক্ষেপে আফগানিস্তানের ভৌগোলিক অবস্থান কেমন ?

আফগানিস্তানের ভূগোলের মধ্যে রয়েছে রুক্ষ পাহাড়, মরুভূমি এবং উর্বর উপত্যকা। এবং হিন্দুকুশ পর্বতমালা দেশের মধ্য দিয়ে চলে গেছে।


7. আফগানিস্তানের অর্থনীতি কেমন?

সংঘাত ও সীমিত অবকাঠামোর কারণে আফগানিস্তানের অর্থনীতি চ্যালেঞ্জের মুখে। কৃষি, বাণিজ্য এবং বৈদেশিক সহায়তা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

8. প্রশ্ন: আফগানিস্তানের শিক্ষাব্যবস্থা কেমন?

শিক্ষা ব্যবস্থায় সামান্য উন্নতি হয়েছে, কিন্তু চ্যালেঞ্জ রয়ে গেছে, বিশেষ করে মেয়েদের জন্য।

9. আফগানিস্তানে আফিমের ব্যবসা কিভাবে প্রভাব ফেলেছে?

আফিমের ব্যবসার ফলে আফগানিস্তানের সামাজিক ও অর্থনৈতিক দুইদিকই ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে এবং সমাজে মাদকাসক্তির মতো সমস্যা প্রকট হচ্ছে। এবং অবশেষে জঙ্গী গোষ্ঠীগুলোর অর্থায়নের মতো বিষয়গুলিতে এর অবদান আছে।

10. আফগানিস্তানে নারীর অধিকারের অবস্থা কেমন ?

অগ্রগতি হয়েছে, কিন্তু লিঙ্গবৈষম্য এখনো উদ্বেগের বিষয়। শিক্ষা, কর্মসংস্থান ও জনজীবনে নারীর ক্ষমতায়নের উদ্যোগ নেওয়া দরকার।


11.  বিদেশি হস্তক্ষেপ কীভাবে আফগানিস্তানের ইতিহাসে প্রভাব ফেলেছে?

-সোভিয়েত দখলদারিত্ব ও পরবর্তী সংঘাতসহ বিদেশি হস্তক্ষেপ আফগানিস্তানের আধুনিক ইতিহাসকে বর্তমান রূপ দিয়েছে।


12. হিন্দু কুশ পর্বতমালার তাত্পর্য কী?

ঐতিহাসিকভাবে, বিদেশি আক্রমণকারীদের জন্য হিন্দু কুশ আফগানিস্তান আক্রমণের একটি বাধা হিসেবে কাজ করে এবং বর্তমানে একটি করিডোর হিসাবে কাজ করছে, বাণিজ্য, সংস্কৃতি, এবং জনগণের চলাচলকে প্রভাবিত করেছে।

13. আফগানিস্তানের প্রধান শহরগুলো কী কী

প্রধান শহরগুলির মধ্যে রয়েছে কাবুল, কান্দাহার, হেরাত এবং মাজার-ই-শরিফ।

14. আফগানিস্তানের বর্তমান নিরাপত্তা পরিস্থিতি  কেমন ?

নিরাপত্তা পরিস্থিতি এখনও জটিল, চলমান সংঘাতে আফগান সরকার এবং বিদ্রোহী গোষ্ঠীসহ বিভিন্ন অংশ জড়িত।

15. আফগানিস্তানের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য কীভাবে সংরক্ষিত হয়েছে?

চ্যালেঞ্জ সত্ত্বেও ঐতিহাসিক স্থান ও শিল্পকর্মসহ আফগানিস্তানের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য রক্ষা ও সংসংরক্ষণের যথেষ্ট চেষ্টা করা হয়েছে।

16. আফগান সমাজে ধর্মের ভূমিকা কী?

ধর্ম, প্রাথমিকভাবে ইসলাম, আফগান সমাজ, সংস্কৃতি এবং দৈনন্দিন জীবনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

17. প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গে আফগানিস্তানের সম্পর্ক কেমন?

ঐতিহাসিক, রাজনৈতিক এবং অর্থনৈতিক বিভিন্ন কারনে আফগানিস্তানের প্রতিবেশী দেশগুলির সাথে এখন একটু জটিল সম্পর্ক রয়েছে।

18. আফগানিস্তানে শান্তি ও পুনর্মিলনের জন্য কি কি প্রচেষ্টা গ্রহণ করা হয়েছে? 

তালেবানের সাথে আলোচনা সহ আফগানিস্তানে পুনর্মিলন ও স্থিতিশীলতা আনার জন্য বিভিন্ন শান্তি উদ্যোগ ও আলোচনার চেষ্টা করা হয়েছে।


আপনার যদি আরও নির্দিষ্ট প্রশ্ন থাকে অথবা এই বিষয়ে আরও তথ্যের প্রয়োজন হয়, তা হলে কমেন্ট এর মাধ্যমে  আমাদের নির্দ্বিধায় জিজ্ঞেস করুন এখুনি। 

যে কোনও নতুন আপডেট সবার আগে পেতে আমাদের   সাবস্ক্রাইব    করুন। 

*** end ***


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন