ডোপামিন কি এবং ডোপামিন কিভাবে কাজ করে ?

ডোপামিন কি এবং ডোপামিন কিভাবে কাজ করে ?


আপনি আগেও ডোপামিনের নাম শুনে থাকতে পারেন এবং এর ব্যাপারে একটা আবছা ধারণা আপনার থাকাও অস্বাভাবিক নয়। এই আর্টিকেলে আমরা বিস্তারিতভাবে ডোপামিনের ব্যাপারে বলব।

ডোপামিন একধরনের নিউরোট্রান্সমিটার। অর্থাৎ মস্তিষ্ক থেকে বের হওয়া এক বিশেষ বস্তু (হরমোন) । সাধারনত যখন কেউ যৌন সম্পর্ক স্থাপন করে অথবা সুস্বাদু খাবার খায় তখন এই ডোপামিন ক্ষরণ হয়।

উত্তেজনাপূর্ন কাজ করে পুরস্কার পাবার প্রত্যাশা ডোপামিনই তৈরি করে আমাদেরকে কাজ করতে উদ্বুদ্ধ করে। এটাকে বলা যায় এক ধরনের শক্তি যেটা আমাদেরকে কাজ করায়। বলা ভালো, ডোপামিন কিন্তু খারাপ কিছু নয়। একটা অতি দরকারি নিউরোট্রান্সমিটার যা আমাদেরকে টিকে থাকতে, আমাদের সন্তান উৎপাদনের ধারা বজায় রাখতে সহায়তা করে। খুব সম্ভবত আমি আপনি যে আজ টিকে আছি সেটার একটা অন্যতম প্রধান কারণ ডোপামিন।

অন্যদিকে, অনেকে ধারণা করে ডোপামিন আসলে আনন্দদায়ী কোনো কেমিক্যাল নয়। এটা শুধুমাত্র কোনো ঘটনার জন্য ডোপামিন ক্ষরণ মানেই আমরা যে এটার জন্য আনন্দ পাই ব্যাপারটা এমন নয়। বস্তুত, যদি আপনি গভীরভাবে দেখেন, আপনার খেয়াল হবে যখন আপনি আশাতীত ফলাফল পেয়ে যাবেন আপনার সহসা নিজেকে খালি আর অপূর্ণ মনে হবে।

আসল সত্য হচ্ছে, আপনি যে পূর্ণতার পেছনে ছুটছেন কোন পরিমাণ উদ্দীপনাই সেটির জন্য যথেষ্ট নয়। যদিও আমাদের অধিকাংশই সার্বক্ষণিকভাবেই উদ্দীপ্ত থাকি এবং অন্য কোনো উৎস খুঁজতে থাকি যেটা ডোপামিন এর নিঃসরণ ঘটাতে পারে। আমাদের মনে হতে থাকে আমরা আরো বেশি চাই আর আমরা কখনোই সন্তুষ্ট নই। যত আমরা স্টিমুলেশন বা উদ্দীপনার পেছনে ছুটি তত এ ব্যাপারটা খারাপ হতে থাকে।

এখন, আপনি আপনার নিজের জীবনের দিকে তাকান। আপনি কীসে আসক্ত? আপনার জীবনে কোনটা কাম্য? আপনার স্টিমুলেশন এর প্রধান উৎস কী? এসব জিনিস কি আসলেই আপনাকে সুখী করতে পারছে?
এই প্রশ্নগুলো যদি আপনি বিবেচনা করেন, আপনি দেখবেন কিছু অতি উদ্দীপক কাজ (ভিডিও গেম দেখা, সোশাল মিডিয়ায় নিজেকে নিমজ্জিত রাখা অথবা ইমেইল দেখা) আপনাকে আসক্ত করে রেখেছে। যখন আপনি এসব কাজ করতে থাকবেন তখন আপনি আত্মনিয়ন্ত্রণ হারাতে থাকবেন, আপনি আরও বেশি উদ্দীপনা তথা স্টিমুলেশন চাইবেন। যদিও এসব কিছুই আপনাকে আসল আনন্দ অথবা সন্তুষ্টি দিতে পারবে না তবুও আপনি এই কাজগুলো ক্রমাগত করতে থাকবেন। আদতে আপনার পরবর্তী ডোপামিন নিঃসরণ এর রসদ দরকার, তাই নয় কি?

এরকম উদ্দীপনাযুক্ত পরিস্থিতিতে, যেসব কাজে অতিরিক্ত মনোনিবেশ দরকার, সেসব কাজ করা কঠিনতর হয়ে পড়ে। ফলাশ্রুতিতে, আপনি গড়িমসি করা শুরু করবেন। আপনার যে বই লেখা শুরুর পরিকল্পনা ছিল আপনি তা পেছাতে থাকবেন। যে নতুন উদ্যোগ আপনার নেবার কথা ছিল, আপনি তা সরিয়ে রাখবেন অথবা আপনার দায়িত্বপ্রাপ্ত আসল প্রজেক্ট আপনি পিছিয়ে দেবেন।

মূলকথায়, বিবর্তন এর প্রেক্ষাপট বিবেচনা করলে, নিজ প্রজাতির সংখ্যা বৃদ্ধি অথবা নিজের টিকে থাকার তাগিদে যেসব কাজ আপনাকে পুরস্কৃত হবার অনুভূতি দেবে, ডোপামিনের ভূমিকা আপনাকে সেসব কাজের জন্য প্রতিনিয়ত উৎসাহ দিয়ে যাওয়া। এটাই ডোপামিনের মূল কাজ। দুর্ভাগ্যবশত আজকের দুনিয়ায় এই পদ্ধতি ছিনতাই করা হয়েছে। ফলশ্রুতিতে অনেক অনিচ্ছাকৃত পরিণতির সৃষ্টি হচ্ছে, যেসব নিয়ে আমরা অন্যকোন সেকশনে আলোচনা করব ।

ডোপামিন সম্পর্কে আশ্চর্যজনক মজাদার তথ্য ও ফ্যাক্ট  সম্পর্কে আপনার অনুভূতি আমাদের কমেন্টে জানান? 

আপনার ইনবক্সে প্রতিদিনের আশ্চর্যজনক তথ্য মজাদার ফ্যাক্ট এবং অজানা বিভিন্ন লেখা  পেতে আমাদের বিনামূল্যের নিউজলেটারে সাবস্ক্রাইব করুন 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন