If you want to read amazing Facts in english Click here
sponsored

ব্লগার হওয়ার নিয়ম ? ব্লগ তৈরির নিয়ম ? ব্লগ লেখার নিয়ম ? ব্লগিং করে কত টাকা আয় করা যায় ? আপনিও কি ব্লগ লিখে প্রচুর টাকা উপার্জন করতে চান ?

বর্তমানে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের লোকেরা ব্লগিং কে নিজের জীবিকা হিসেবে বেছে নিয়েছেন। আর এইটা একেবারে সত্যিই যে, ব্লগে তারা অনলাইনে অনেক টাকা রোজগার কর

 আপনিও কি ব্লগ লিখে প্রচুর টাকা উপার্জন করতে চান ? 

ব্লগ শব্দটি হয়তো আপনি  অনেকবার  অনেক জায়গায় শুনেছেন। এক্ষেত্রে,  ব্লগ কি ? এবং ব্লগার মানে কি? সেটা জেনে নেওয়াটা কিন্তু আপনার জন্য অনেক লাভজনক হতে পারে।

ব্লগ এমন একটা টেকনোলজি যে টেকনোলজির  মাধ্যমে আপনি  অনলাইন অনেক টাকা আয় করতে পারবেন।

আবার, অনেকের জন্য ব্লগ হলো ইন্টারনেটে কিছু জানার বা শেখার মাধ্যমব্লগের প্রথমদিন থেকেই আয় করার কথা চিন্তা করার আগে, আপনার ব্লগের সম্পর্কে পুরো ধারনা বা নলেজ থাকা উচিত।

মানে আমি বলেত চাইছি , 

ব্লগ বলতে কি বোঝায় ?ইত্যাদি ইত্যাদি সমস্ত খুঁটিনাটি  জিনিস গুলির ওপরে আপনার পুরো জ্ঞান ও knowledge থাকতে হবে।

চিন্তা করবেন না, আমরা  এই পোস্টে আপনার জন্য  “ব্লগ কি বা কাকে বলে” ও “ব্লগ থেকে কিভাবে অনলাইন আয় করা যাবে” এই বিষয়ে বিস্তারিত বলবো।

এক কথায়, ব্লগের সমস্ত বিষয়ের উপর উপরি উপরি আজ আমাদের আলোচনা হবে। তাই পুরো আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন।

 তাহলে চলুন এক এক করে  আমরা ব্লগ মানে কি তা জেনে নেই 

ব্লগ কি আর কিভাবে বানাবেন , আর blogging থেকে online income কিভাবে করবেন এই বিষয়ে বলার আগে আমি একটা ছোট্ট কথা আপনাদের বলতে চাই। 

বর্তমানে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের লোকেরা ব্লগিং কে নিজের জীবিকা হিসেবে বেছে নিয়েছেন। আর এইটা একেবারে সত্যিই  যে, ব্লগে  তারা অনলাইনে অনেক টাকা রোজগার  করছেন। 

যদি আমি আমার নিজের কথা বলি , আমি এখন নিজে আমার ব্লগ থেকে কিছুদিন আগেই আয় করতে শুরু করেছি। খুব বেশি নয়, অল্প অল্প করে শুরু করছি। 

আপনি যদি ব্লগিং এর বিষয়ে আমার থেকে স্পেশাল কোন সাহায্য চান, তবে আমার Whatsapp এ যোগাযোগ করুন। (paid service)

আর আপনিও  যদি ব্লগ লিখে পার্ট-টাইম বা ফুল-টাইম টাকা উপার্জন করতে চান, তাহলে আপনার দুটো কথা মাথায় রাখতে হবে। 

  • ব্লগ কি আর কিভাবে বানাবেন ?
  • নিজের ব্লগে কঠোর পরিশ্রম করা।

ব্লগ কিভাবে বানাবেন ? কি কি জিনিসের প্রয়োজন হবে ? ইনকাম কিরকম হতে পারে ? কি কি নলেজ রাখা দরকার ইত্যাদি ইত্যাদি বিষয়ে নিচে বিস্তারিত আলোচনা করা হচ্ছে।

সহজ কথায়  ব্লগ কাকে বলে ?

যদি সহজে বুঝতে চান তাহলে বলি ব্লগ হচ্ছে একটি ডায়েরির মত, কিন্তু এমন ডায়েরী যেটি পৃথিবীর যেকোনো লোক পড়তে পারে।

আপনি আপনার মনের মত যা খুশি আপনার ব্লগে লিখতে পারেন, কেউ আপনাকে বাধা দেয়ার নেই।

আপনি গল্প লিখতে পারেন, কবিতা লিখতে পারেন, বিভিন্ন আর্টিকেল লিখতে পারেন, টিউটোরিয়াল, SMS, মুভি রিভিউ,  শায়েরী, বা আমাদের মত ফ্যাক্ট লিখতে পারেন। যা ইচ্ছা তাই করতে পারেন। গান বা ইবুক ডাউনলোড সাইট বানাতে পারেন, শুধু একটা বিষয় একটু খেয়াল রাখা দরকার যে, আপনার পার্সোনাল ডাইরির মতো এটা কিন্তু পার্সোনাল জিনিস নয়। পৃথিবীর যেকোনো লোক আপনার পাবলিশ করা পোস্ট ইচ্ছা করলেই দেখতে পারে। যেমন আপনি দেখছেন।

ব্লগ কিভাবে লিখবেন ?

আর যদি আপনি আয়ের কথা মাথায় রেখে ব্লগ লেখেন তাহলে বলব, আপনি যেকোনো একটি বিষয়ের উপর টার্গেট করুন, এবং সেই বিষয়ে আপনার সমস্ত আর্টিকেল লিখুন। আপনার ব্লগটাকে এমন জায়গায় নিয়ে যান, যাতে মানুষ সেই বিষয়ে সবার আগে আপনার ব্লগেই খোঁজ করে।

সঙ্গে লেখাটা অবশ্যই ইউনিক হতে হবে, কারণ আপনার লেখা যদি আগে থেকেই অন্য কোন ওয়েবসাইটে পাওয়া যায়, তাহলে শুধু শুধু মানুষ আপনার ওয়েবসাইট থেকে কেন দেখতে যাবে ? আপনি বলতে পারেন যে, আমি কি তাহলে এক্সপার্ট ? না। আর্টিকেল লেখার একটা সবচেয়ে সহজ উপায় হল, আপনি আগে নিজে জানবেন তারপর অন্যকে জানাবেন। উদাহরণ হিসাবে ধরুন, আপনি এই আর্টিকেল টা প্রথমে নিজে পরলেন, জানলেন, তারপর যদি আপনার ইচ্ছা হয় আপনার ব্লগে নিজের মত করে লিখলেন, তাহলে কোন সমস্যা নেই। সমস্যা তখনি হবে যখন আপনি এই লেখাটি হুবহু নিজের ব্লগে কপি করে পোস্ট করবেন। 

আর এটা তো ঠিক যে, আপনি মেসিভ ট্রাফিক বা ভিজিটর  ছাড়া কোনদিনই সাকসেস হতে পারবেন না।

ব্লগ সফল হতে কত সময় লাগে ?

কিন্তু একটা কথা আপনার মাথায় রাখতে হবে যে ব্লগ বানানো ও  ব্লগ সফল করা এক জিনিস নয়।

আজকের এই আর্টিকেলে আপনি ব্লগ বানানো শিখবেন ঠিকই, কিন্তু আপনার ব্লগ কিভাবে সফল করতে হবে সেটা পুরোপুরি আপনার নিজের উপরে থাকবে। কঠিন হার্ডওয়ার্ক আপনাকে সফলতা এনে দিতে পারে।

বেশিরভাগ সময়ই দেখা যায় সাধারণত, মানুষ যেরকম আগ্রহ নিয়ে ব্লগ তৈরি করে ঠিক ততটা আগ্রহ নিয়ে পরবর্তী দিনগুলো তে কাজ করতে চায় না। আগ্রহ হারিয়ে ফেলে।  সেরকম হলে ব্লগ বানানোর কোন মানে নেই। আপনার প্যাশনের  উপর আপনার আগ্রহ থাকা আবশ্যক। আর যদি আপনি সঠিকভাবে পূর্ণ আগ্রহের সঙ্গে নিজের ব্লগে ১২ থেকে ১৮ মাস লাগাতার কাজ করে যান, তাহলে নিঃসন্দেহে বলা যেতে পারে আপনার ব্লকটি সফল হবেই হবে। এবং ভবিষ্যতে হয়তো আপনার অন্য কোন কাজ করা নাও লাগতে পারে। আপনার শখের ব্লগটাই  হতে পারে আপনার ফুল টাইম বিজনেস।

 ব্লগ বানাতে ও আর্টিকেল লিখতে কি কি প্রয়োজন ?

ব্লগ লিখতে আপনার কিছু জিনিসের প্রয়োজন হবে যেমন, একটা কম্পিউটার বা  ল্যাপটপ। 

মোবাইল দিয়েও ব্লগিং  সম্ভব যদিও। কিন্তু কম্পিউটার দিয়েই বেশি সুবিধা হবে।  ও সঙ্গে 4g ইন্টারনেট কানেকশন থাকতে হবে। 

সঙ্গে অতি গুরুত্বপূর্ণ , আপনি যে বিষয় লিখছেন সে বিষয়ে সঠিক জ্ঞান বা নলেজ থাকা দরকার। আপনার যদি সঠিক নলেজ না থাকে তাহলে আপনি সেই বিষয়ে অন্যদের কিভাবে বোঝাবেন ? আগেও বলেছি, আগে জানুন, তারপর জানান।

যদি উপরের জিনিসগুলো আপনার মধ্যে বিদ্যমান হয় তাহলে এবার আসি আপনি কিভাবে আপনার জন্য একটি ফ্রি ব্লগ সাইট তৈরি করবেন ?

আপনি একটি ফ্রি ব্লগ কিভাবে বানাবেন ?

ব্লগ বানানোর অনেক উপায় থাকলেও, প্রধান দুইটি উপায় বেশিরভাগ লোক ব্যবহার করে।

1. Self hosted wordpress site

Self  hosted wordpress site এর উদাহরণ দেখতে এখানে ক্লিক করুন। 

2.  Free blogger blog

Free bloger blog যদি আপনি ভালো করে বানাতে পারেন, তাহলে আপনি myebook.in এর মতো একটি সাইট তৈরি করতে পারেন। অসুবিধা হলে অবশ্যই নির্দ্বিধায় কমেন্টস করতে ভুলবেন না। 

সেল্ফ হোস্টেড ওয়ার্ডপ্রেস ব্লগে , আপনার কিছু  টাকা খরচ করতে হবে। কিন্তু আপনি অনেক বেশি সুবিধা ও সুন্দর কস্টিউম থিম পাবেন। সঙ্গে আপনার সাইটের কন্টোল আপনার হাতেই থাকবে। 

আর, ফ্রি ব্লগার ব্লগ যেখানে আপনার একটাকাও দেবার দরকার পরবে না। আপনি, পুরো ফ্রিতে নিজের একটা ব্লগ বানিয়ে নিতে পারবেন। কিন্তু  লিমিটেড কন্টোল ও কস্টিমাইজেশনের সঙ্গে আপনি পাবেন একটি সাবডোমেইন। চাইলে কিছু টাকা খরচ করে একটি ডোমেইন নিতেই পারেন।

আপনার মতামত জানতে আমরা আগ্রহী তাই একটি মন্তব্য করুন, যাতে আমরা এই বিষয়ে আপনার মতামত জানতে পারি।

এই নিবন্ধটি আপনার বন্ধুদের এবং পরিবারের সাথে শেয়ার করুন  তাঁদের এই বিষয়ের জ্ঞান অর্জনে সহায়তা করার জন্য।

আমাদের fb page এ  follow করুন ও আমাদের সঙ্গে যুক্ত থাকুন।

Post a Comment

Middle post ad 01