ফাইভ-জি নেটওয়ার্ক কি কেন কিভাবে ? ভারতে কবে চালু হবে 5G ?


মোবাইল ফোনের পঞ্চম জেনারেশনের ইন্টারনেট সংযোগকে সংক্ষেপে বলা হচ্ছে ফাইভ-জি।

ফাইভ-জি এর সাহায্য ব্যবহারকারী 4g থেকে অন্তত 10 গুন বেশি দ্রুত ইন্টারনেট পরিষবা উপভোগ করতে পারবেন। 

4g এর সাহায্য আমরা আজকাল যা যা করতে পারছি 5g এর মাধ্যমে সেই সবকিছুই অনেক দ্রুত গতিতে ব্যবহার করতে পারবো।

মনে করুন একটা 2gb file আপনি মাত্র 1 সেকেন্ডের মধ্যেই ইন্টারনেট থেকে আপনার মোবাইলে ডাউনলোড করে নিতে পারবেন,  কি দারুন না !

হ্যাঁ এরকমই হবে কয়েক বছরের মধ্যেই। অবশ্য এয়ারটেল  ও জিও 5g ভারতের কিছু কিছু অঞ্চলের বিশেষ জায়গার শুরু করা হয়েছে। তবে আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন ভারতে পহেলা অক্টোবর 2022 করা হলো।

বর্তমানে স্মার্টফোন দিয়ে আমরা যাই করি না কেন, ফাইভ-জি হলে তা আরো দ্রুত গতিতে এবং ভালোভাবে করা সম্ভব হবে। 

4g থেকে 5g (ফাইভ-জি) তে গেলে সাধারন ব্যবহারকারীদের কি কি সুবিধা হবে ? দেখে নিন এক ঝলক!

  • সবথেকে বেশি সুবিধা হবে যারা মোবাইল ফোনে বিভিন্ন ধরনের গেম খেলতে ভালোবাসেন। ফাইভ-জির মাধ্যমে মোবাইল গেমাররা  আরো দ্রুত ও পরিষ্কার গ্রাফিক্স দেখতে পারবে। 
  • ভিডিও কল আরো পরিষ্কার হবে। 
  • শরীরে লাগানো ফিটনেস ডিভাইসগুলো নিখুঁত সময়ে সংকেত দিতে পারবে। ফলে জরুরি চিকিৎসা সেবাতেও আমূল পরিবর্তনের সম্ভাবনা রয়েছে।
5g ও 4g এর মধ্যে কি কি পার্থক্য আছে ?

আসলে ফাইভ-জি ফোর জি থেকে একেবারে নতুন ও অভিনব একটি প্রযুক্তি ও একেবারে  অন্য ব্যান্ডের রেডিও তরঙ্গের ব্যবহার করা হচ্ছে। 

তবে  হয়তো প্রথম প্রথম আপনি ফাইভ জি এর মাধ্যমে দ্রুত গতির ইন্টারনেট পরিষেবা পাবেন না। কারণ, নেটওয়ার্ক অপারেটররা বর্তমানে ফোর-জি নেটওয়ার্ককেই একটু বেশি দ্রুত করে ফাইভ-জি বলে চালিয়ে দিতে পারে।

কিন্ত দ্রুত গতির ইন্টারনেট নির্ভর করবে কোন স্পেকট্রাম ব্যান্ডে আপনি ফাইভ-জি ব্যবহার করছেন ও আপনাকে আপনার ইন্টারনেট অপারেটর কোন স্পেকট্রাম ব্যান্ডে  এবং ট্রান্সমিটারের পেছনে কতটা বিনিয়োগ করছে তার উপর।

ভারতের 5g স্পেকট্রাম অকশানের বিষদ বিবরণ।

মুকেশ আম্বানীর জিও ভারতের 5g স্পেকট্রাম অকশানে সবথেকে বেশি স্পেকট্রাম কিনেছে। Rs 88,078 কোটি টাকার স্পেকট্রাম কিনে প্রথম স্থান অধিকার করেছে রিলায়েন্স জিও। দ্বিতীয় স্থানে আছে ভারতী এয়ারটেল বা এয়ারটেল Rs 43,084 কোটি টাকার স্পেকট্রাম কিনে এরা দ্বিতীয়। তৃতীয় স্থানে Rs 18,799 কোটি টাকার স্পেকট্রাম কিনেছে ভি বা ভোডাফোন আইডিয়া। আর মজার ব্যাপার হলো আমাদের সবাইকে চমকে দিয়ে Rs 212 কোটি টাকার স্পেকট্রাম কিনেছেন বর্তমানের ভারতের সবচেয়ে ধনী ব্যাক্তি গৌতম আদানী। তিনি এই স্পেকট্রাম ব্যান্ডের কি করবেন তা এখনও স্পষ্ট নয়। এবং মোট বিক্রিত ব্যান্ডের মাত্র এক শতাংশ কিনেছেন গৌতম আদানী। যা খুবই কম।

উপরে দেওয়া তথ্য থেকে বোঝাই যাচ্ছে রিলায়েন্স জিও ফাইভ-জির সার্ভিস অন্যদের তুলনামূলক ভালো হওয়ার সম্ভাবনা সবথেকে বেশি।

ভারতের 5g ফ্রিকোয়েন্সি ব্যান্ডের ক্ষমতা?

তবে ফাইভ-জি প্রটোকলের মান এখনো নির্ধারিত হয়নি। 3.5 গিগাহার্জের থেকে 26 গিগাহার্জের মতো হাইয়ার ফ্রিকোয়েন্সি ব্যান্ডের অনেক ক্ষমতা রয়েছে, কিন্তু স্বল্প তরঙ্গ দৈর্ঘ্যের কারণে তাদের আওতা থাকে কম।

বর্তমানের ফোর-জি প্রযুক্তির নেটওয়ার্ক গড়ে সর্বোচ্চ 45mbps গতির সুবিধা দিতে পারে। 

একবার এই বিষয়ে স্মার্টফোন প্রসেসর নির্মাতা কোয়ালকম বলছিল, ফোর-জির তুলনায় ফাইভ-জি 10 থেকে 20 গুণ গতি দিতে পারবে।

ভারতে কবে চালু হবে 5G ?

যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও অস্ট্রেলিয়ায় এরই মধ্যে চালু হয়েছে পঞ্চম প্রজন্মের মুঠোফোন নেটওয়ার্ক ফাইভ-জি।

ভারতে 5g উদ্ভদন হয়েছে গত পহেলা অক্টোবর ২০২২।

ধারণা করা হচ্ছে, 2023 সাল নাগাদ বিশ্বব্যাপী প্রায় 100 কোটি ফাইভ-জি গ্রাহক তৈরি হবে। সঙ্গে 2023 সালের শেষের দিকে ভারতে পুরোদমে শুরু হয়ে যাবে 5g এর ব্যবহার।

 
কেমন লাগলো কমেন্টে জানান, এবং বন্ধু ও পরিবারের সঙ্গে শেয়ার করতে ভুলবেন না।
আমাদের facebook page লাইক করে সঙ্গে থাকুন। 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ