ভালো ঘুম না হলে কী করবেন ? জেনে নিন চটপট | fanfact.in

ভালো ঘুমের বিভিন্ন উপায় খুঁজতে খুঁজতে অনেকেই ক্লান্ত হয়ে পড়েন। খোঁজাও স্বাভাবিক, ঘুম না হলে সবকিছু উল্টে যায়। কিছু সমস্যা একজন ব্যক্তি নিজের ক্যারিয়ার এবং ব্যক্তিগত জীবনে অনুভব করেন, যেমন বিরক্তি এবং ক্ষুধার অভাব। প্রতিদিন স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া যেমন জরুরি, তেমনি প্রতি রাতে ভালো ঘুম হওয়াও জরুরি।অনেকের ভালো ঘুম না হওয়ার প্রধান কারণ হল বিভিন্ন ধরনের চিন্তা। আমাদের যদি কিছু উপায় থাকে তবে আশা করি আমাদের ঘুম ভাল এবং প্রশান্ত হবে। চলুন দেখে নেওয়া যাক এমন কিছু উপায় যা আপনি আপনার উৎপাদনশীলতা বাড়াতে পারেন।

ভালো ঘুম না হলে কী করবেন ?

ঘুমাতে যাওয়ার আগে কি করা উচিত ?

ঘুমাতে যাওয়ার আগে অন্তত দুই থেকে তিন ঘণ্টা ইলেকট্রনিক ডিভাইস ব্যবহার এড়িয়ে চলার চেষ্টা করুন। আপনার বেডরুম ঠান্ডা রাখার পাশাপাশি, বিছানা আরামদায়ক এবং পরিষ্কার নিশ্চিত করুন। ঘুমানোর আগে ঘরের সব আলো নিভিয়ে এবং মৃদু গান  শুনে আরাম করতে পারেন।

মাথা ঠাণ্ডা রাখুন ও বিভিন্ন ধরনের চিন্তা থেকে বিরত থাকুন

আপনার মস্তিষ্ককে সুস্থ ও কর্মক্ষম রাখতে পর্যাপ্ত ঘুমের কোনো বিকল্প নেই। ঘুম আপনার মস্তিষ্ক রিচার্জ করার একটি প্রাকৃতিক উপায়। আপনি যদি পর্যাপ্ত ঘুম না পান তবে আপনার মনোযোগ এবং বিরক্তি কমবে কাজে। কিছু হালকা ব্যায়াম এবং ধ্যান আপনাকে এমন চিন্তা থেকে দূরে থাকতে সাহায্য করতে পারে যা নেতিবাচক আবেগের দিকে নিয়ে যেতে পারে।

একটি নিদিষ্ট সময়  নির্ধারণ করুন

বিশেষজ্ঞরা সম্মত হন যে রাত 10 থেকে 11 টার মধ্যে ঘুমানোর জন্য এটি একটি ভাল সময়। আপনার প্রতিদিন একই সময়ে ঘুমানো উচিত। রাতে কাজ থাকলে রাতে কাজ করার চেয়ে তাড়াতাড়ি ঘুম থেকে উঠে কাজ করা ভালো।

আপনি আরও পড়তে পারেন রাত জাগার ক্ষতিকর দিকসমূহ

স্বাস্থ্যকর খাবার খান

একটি স্বাস্থ্যকর খাদ্য লাঠি. রাতে ভালো ঘুম নিশ্চিত করতে ঘুমের দুই ঘণ্টা আগে রাতের খাবার খান। সুস্থ থাকতে চাইলে অতিরিক্ত তেল বা মসলাযুক্ত খাবার খাওয়া এড়িয়ে চলার চেষ্টা করুন। চা এবং কফি অল্প পরিমাণে খাওয়া উচিত কারণ এতে ক্যাফেইন থাকতে পারে। ঘুমানোর আগে গরম দুধ পান করতে পারেন। যে কোনো উপায়ে ওষুধ ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন।

কায়িক পরিশ্রম ও মেডিটেশন করুন

ব্যায়াম হল অনিদ্রার চিকিৎসার সর্বোত্তম উপায় এবং এটি সবচেয়ে নিরাপদ এবং সবচেয়ে সাশ্রয়ী বিকল্পও। নিয়মিত ব্যায়াম এবং ধ্যান মানসিক চাপ কমাতে এবং ঘুমের উন্নতি করতে সাহায্য করতে পারে।

সতর্কতা

অনেকেই ঘুমাতে না পারলে নিজে থেকেই ঘুমের ওষুধ খেয়ে থাকেন। যাইহোক, এটা উচিত নয়. আপনার ডাক্তারের সাথে কথা না বলে কখনই ঘুমের ওষুধ খাবেন না।

আপনি আরও পড়তে পারেন ঃ প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে যা করলে খুব দ্রুত ফর্সা ও সুন্দর হবেন

আমাদের facebook page ফলো করতে ভুলবেন না। বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করুন, যদি আপনার ভালো লেগে থাকে। আর যেকোনো নতুন পোস্ট বা আর্টিকেল এর ইমেইল নোটিফিকেশন পাওয়ার জন্য আপনি এখানে ক্লিক করতে পারেন। ক্লিক করার পর আপনার নাম ও ইমেইল দিয়ে সাবমিট করে দেবেন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ